মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজে বঙ্গবন্ধুর জম্মদিন ও জাতীয় শিশুদিবস অনুষ্ঠিত

সবার কাছে পৌঁছে দিতে হবে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার ইতিহাস মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজে বঙ্গবন্ধুর জম্মদিন ও জাতীয় শিশুদিবসের আলোচনা সভায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক
বঙ্গবন্ধু ছিলেন পিছিয়ে পড়া পরাধীন জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আলোকবর্তিকা । তিনি বাঙ্গালী জাতির মুক্তির জন্য সারাজীবন রাজনীতি করে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে গেছেন। তিনি ৬৬ সালের ৬ দফা স্বাধিকার আন্দোলন, ৭১সালে ৭ মার্চে ঐতিহাসিক ভাষণ পরবর্তীতে স্বাধীনতার যুদ্ধে ৯ মাসে বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্র পৃথিবীর মানচিত্রে জম্ম দিয়েছেন। তা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুর মতো নেতার জম্ম হয়েছে বলে। স্বাধীনতার অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখতে শিক্ষিত জাতির বিকল্প নেই । বঙ্গবন্ধু একটি প্রেরণা একটি অধ্যায় এই মূল্যবোধ আগামী প্রজম্মকে স্বাধীনতার চেতনায় ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ বিনিমার্ণে অগ্রণী ভুমিকা রাখবে। বাংলাদেশের আগামীর ভবিষ্যৎ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার কারিগর কোমলমতি এসকল শিশুদের কাছে তুলে ধরতে হবে বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস। সবার কাছে পৌছে দিতে হবে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার ইতিহাস,যে সোনার বাংলা গড়ে তুলতে গিয়ে স্ব-পরিবারে প্রান হারান ষড়যন্ত্রকারীর কাছে। জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ে তুলবে আজকের এই শিশুরা। আগামী প্রজম্মের হাতে রইল বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তোলার দায়িত্ব। মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজের বঙ্গবন্ধুর জম্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন একথা বলেন। গত ১৭ মার্চ চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁও এক কিলোমিটারস্থ মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজের চান্দগাঁও ক্যাম্পাসের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জম্মদিন ও জাতীয় শিশুদিবসের আলোচনা সভা প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক ক্রিড়া সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান প্রিন্সিপাল ড.মোহাম্মদ সানাউল্লাহ্ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন , বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের পরিচালনা পষর্দের ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ মোরশেদ হোসেন, কলেজিয়েট স্কুলের সিনিয়ার শিক্ষিকা শাহনাজ পারভিন, মেরিট বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের পরিচালক জয়নাল আবেদিন লিটন, প্রতিষ্টানের উপাধ্যক্ষ নুর কাশেম তালুকদার,অনুষ্টান সঞ্চালনায় করেন শিক্ষক ওসমান বেনিজি । শিশু দিবসের আলোচনাা শেষে বার্ষিক ক্রিড়া সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার ইভেন্ট বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয় ।
Share on Google Plus

0 comments: