১৫৭তম হাবিলদার রজব আলী দিবস পালিত

১৮৫৭ সালে ভারত বর্ষের স্বাধীনতা কামী দেশীয় সিপাহী বিদ্রোহের মহানায়ক হাবিলদার রজব আলী খাঁ এর সেই ১৮৫৭ সালের ১২ নভেম্বর চট্টগ্রামের ৩৪ বেঙ্গল রেজিমেন্ট এর এদেশীয় সৈনিকদের ব্রিটিশ সম্রাজ্যর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করেন।
সেই দিবসের ১৫৭ বছর পূর্তি উপলক্ষে ১২ নভেম্বর হাবিলদার রজব আলী দিবস স্মরণে এক আলোচনা সভা চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের উদ্যোগে সন্ধ্যায় চকবাজারস্থ মাওলানা হাসান শরীফ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মো. ফখরুদ-দীন এর সভাপতিত্বে এই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট শিাবিদ অধ্যক্ষ ড. মোঃ সানাউল্লাহ আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন অধ্যাপক ওচমান জাহাঙ্গীর, অধ্যাপক সিহাব ইকবাল, সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন, ডা. আর.কে রুবেল, ডা. বরুন কুমার আচার্য্য বলাই, অধ্যাপক দিদারুল ইসলাম, অধ্যাপক জামাল উদ্দিন হারুন, ইঞ্জিনিয়ার নুর হোসেন, ইমরান সোহেল, অমর দত্ত, বিজয় চক্রবর্তী, মামুনুর রশীদ, ডি.কে ঘোষ, সৈয়দ জামাল হক প্রমূখ। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য ড. অধ্য মোঃ সানাউল্লাহ বলেছেন হাবিলদার রজব আলী খাঁ চট্টগ্রামের ইতিহাসে কালজয়ী মনিষী ও ভারতীয় মহান স্বাধীনতা আন্দোলনে প্রাতঃ স্মরণীয় যোদ্ধা ১৮৫৭ সালে ভারত বর্ষে সিপাহী বিদ্রোহে তার অবদান অপরিসীম। ১৭৫৭ সালে পলাশীর প্রান্তরে বাংলার শেষ নবাব সিরাউদৌলার পরাজয় ও হত্যার মধ্যে দিয়ে বাংলার শাসন মতা দখল করে নেয় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী। পরবর্তীতে সমগ্র ভারত বর্ষ ইংরেজদের করলঘাত হয়। ভারত বর্ষের অপার সম্পদ লুট করে নিয়ে যায় ইংরেজরা। ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে স্বাধীনতা হারানোর মর্ম বেদনা ভূলতে পারেনি স্বাধীনতা কামী ভারত বর্ষ। এর শত বছর পর ১৮৫৭ সালে পরিকল্পিত ভাবে চট্টল বীর সন্তান হাবিলদার রজব আলী ইংরেজদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের সূচনা করেন। ১৮৫৭ সালের ১২ নভেম্বর হাবিলদার রজব আলী চট্টগ্রামের ৩৪নং দেশীয় পদাতিক বাহিনীর ২, ৩ ও ৪ নং কোম্পানীর চার শতাধিক সিপাহী সহ ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে মহা সংগ্রামে স্বাধীনতার জন্য জড়িয়ে পড়েন। ঐ সময় আতঙ্কিত ব্রিটিশ সৈন্যরা সমুদ্রে জাহাজে আশ্রয় নেন। তখন চট্টগ্রাম প্রায় ত্রিশ ঘন্টা ব্রিটিশ শাসন মুক্ত ছিল। বক্তারা ১৮৫৭ সালের ১২ নভেম্বরের ঐতিহাসিক হাবিলদার রজব আলী ও তাঁর সিপাহী বিদ্রোহের ঐতিহাসের জাতীয় পাঠ্য পুস্তকে অন্তরভুক্তির দাবী জানান।
Share on Google Plus

0 comments: