কলকাতার ডেপুটি মেয়র ফরজানার কার্যালয়ে অধ্যক্ষ ড. মো. সানাউল্লাহ

ভারতের কলকাতা পৌরসংস্থার উপ মহানাগরিক (ডেপুটি মেয়র) মিসেস ফরজানা আলম বলেছেন, প্রাচীন কাল ও আজকের সময়েও বিপ্লবী চট্টগ্রামের কালজয়ী মনীষীদের ইতিহাস গর্ব করার মতো। সর্ব ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে কালজয়ী বিপ্লবী মাস্টারদা সূর্যসেন এর জীবন দান পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য মাস্টারদা সূর্যসেনকে ভারতবাসী ও বাঙালিরা আজীবন শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করবে। চট্টগ্রাম এমনিতে প্রাচীন ও বিপ্লব তীর্থভূমি। মাস্টারদা সূর্যসেন, বীরকন্যা প্রীতিলতা, হাবিলদার রজব আলী, মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী, কাজেম আলী মাস্টার সহ অসংখ্য স্বাধীনতা সংগ্রামীর জন্মভূমি এই চট্টগ্রাম। সাহিত্য সংস্কৃতি, রাজনীতিক ইতিহাসে অনেক বিখ্যাত মানুষ চট্টগ্রাম হয়ে সমগ্র ভারতবর্ষে নেতৃত্ব দিয়েছেন। কলকাতা পৌরসংস্থার দ্বিতীয় মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন দেশপ্রিয় যতীন্দ্র মোহন সেনগুপ্ত। যতীন্দ্র মোহন সেনগুপ্তের অনুকরণীয় দৃষ্টান্তগুলো এখনো কলকাতা পৌরসংস্থা সম্মানের সাথে সংরক্ষণ করে। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৪ ইং চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের একটি প্রতিনিধি দল ৫নং সুরেন্দ্রনাথ ব্যানার্জি রোডস্থ কলকাতা পৌরসংস্থার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে উপ মহানাগরিক ফরজানা আলম এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করতে গেলে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পৌরসংস্থার কাউন্সিলর সুশীল কুমার শর্মা, চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মো. ফখরুদ-দীন, শিক্ষা গবেষক অধ্যক্ষ ড. মো. সানাউল্লাহ, মাস্টারদা সূর্যসেন ও মহাকবি নবীন চন্দ্র সেন স্মৃতি সংঘের মহাসচিব ডা. বরুণ কুমার আচার্য্য বলাই, কলকাতা আবৃত্তি পরিষদের সভাপতি কবি সুরজিৎ ঘোষ, প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও গল্পকার রূপ কুমার পাল, প্রবীণ কবি সমরেন্দ্র দাশগুপ্ত, নারীজনার সম্পাদক উৎপল দত্ত, কবি ও কথা সাহিত্যিক ড. নিখিল রঞ্জন পড়–য়া, সাহিত্যগুণরতœ অমরেশ মুখোপাধ্যায়, সব্যসাচী লেখক সুব্রত হালদার প্রমুখ। এ সময় চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের পক্ষ থেকে ডেপুটি মেয়র ফরজানা আলমকে চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্র স্মারক সম্মাননা ও কলকাতা পৌরসংস্থার মেয়র শোভন চ্যাটার্জীকে পৃথক পৃথক সম্মাননাপত্র প্রদান করা হয়।
Share on Google Plus

1 comment:

  1. চট্টগ্রাম প্রাচীন ও বিপ্লব তীর্থভূমি

    ReplyDelete